Tuesday, December 5, 2017

স্কুলে থাকতে সিনেমার ন্যুন শো চিনলেও যৌন হেনস্থা চিনিনি

রিসেন্ট একটা স্কুলের ঘটনা সবাই শুনেছেন।
তাছাড়া আরও অনেক খবর আমরা রোজ শুনছি।
পোষ্টটী পড়লেই বুঝতে পারবেন সব।
OLd SCHOOL

না ছিলো না!
আমার আটপৌরে দেড়শো বছর পেরিয়ে যাওয়া ইস্কুলে হোয়াইট বোর্ড ছিলো না - খড়খড়ে ব্ল্যাকবোর্ড ছিলো। 
স্মার্ট ক্লাসরুম আর ইন্ডিভিজুয়াল ডেস্ক ছিলো না - ছিলো ঘরের মেঝেতে ময়লা জমে থাকা সপ্তম শ্রেণী আর সারি সারি নড়বড়ে পায়ার 'বেঞ্চ' - যাতে পাঁচজন প্রাণের বন্ধু একসাথে বসতাম। স্পেশাল রেমেডিয়াল ক্লাস ছিলো না - কেশব নাগের অংকের বইয়ে তৈলাক্ত বাঁশে বাঁদরের ওঠানামা মাপতে মাপতেই গোঁফ এবং লেজ গজিয়ে গেছে আমাদের।
স্যুট টাই পরা টীচার্সদের কাছে পড়ার 'সৌভাগ্য' হয়নি আমাদের - 'ম্যানার্স' এবং 'ডেকোরাম' এর তালিমেও ঘাটতি থেকে গেছে বিস্তর - তবু বোকা কৈশোরের আমরা ধুতি শার্ট পরা ছাপোষা মাস্টারমশাইদের দেখলেই সিগারেট লুকোতাম - বিজয়ার পরে পায়ে হাত দিয়ে পেন্নাম ঠুকতাম। 
সেই বিরল এবং বিলুপ্ত প্রজাতির বাংলা মিডিয়াম ইস্কুলের মাস্টারমশাইরা - যারা সবাই হয়ত ভালো পড়াতেন না - কেউ একটু বেশীই মারকুটে ছিলেন - কারো নিরীহতার সুযোগে পঞ্চম পিরিয়ড হয়ে উঠত মাছের বাজার - যাদের কাছে আমাদের বোকা বাবা মায়েদের আবদার ছিলো "মাস্টারমশাই - কোনো রকম অসভ্যতা দেখলে দুই চড় কশিয়ে দেবেন"। 
তাই ভালো রেজাল্ট করে দেখা করতে গেলে ওঁরা শেক হ্যান্ড করে 'কংগ্র‍্যাটস' বলেন নি - আলতো করে কান মলে দিয়েছেন।
চকচকে রাংতার মোহে এই ইস্কুল গুলোকে আমরা মেরে ফেললাম - যাদের প্রতিটি শিক্ষককে আমাদের বাবা মা রা ব্যক্তিগতভাবে চিনতেন - সকালের বাজারে একসাথে কাটাপোনা কিনতেন যে! স্কুলে থাকতে থাকতেই তাই আমরা সিনেমার ন্যুন শো চিনলেও - 'যৌন হেনস্থা' চিনিনি ভাগ্যিস।

0 comments:

Post a Comment