ব্যাঙ্ক ম্যানেজারের প্যান্ট খোলানোর বাজী

আজ আপনাদের জন্য নিয়ে আসলাম একটা মজার গল্প।
কথা না বলে শুরু করে দিচ্ছি...

এক ব্যাঙ্কের ম্যানেজার বেশ কিছুদিন যাবৎ লক্ষ্য করছে এক কাস্টমার প্রত্যেকদিন ব্যাঙ্কে এসে এক লাখ বা দেড় লাখ টাকা জমা করছে।
ম্যানেজারের খুব সন্দেহ হল।
তাই একদিন ঐ কাস্টমারকে চেম্বারে ডেকে নিয়ে বসাল।
ম্যানেজার : আপনি কি করেন?
কাস্টমার : আমি তো কোন কাজ করি না।
ম্যানেজার : সে কি! আমি তো মনে করলাম আপনার কোনও বড় ব্যাবসা আছে।
কাস্টমার : না না আমার কোনও ব্যাবসা নেই। আমি শুধু লোকজনের সঙ্গে বাজী ধরি। আর ভগবান আমার সহায়, আমি কখনও বাজীতে হারি না। আর এটাই আমার ইনকাম।
ম্যানেজার: তার মানে ক্রিকেট খেলার বেটিং জাতীয়?
কাস্টমার: না না। আমি এইসব চক্রের সঙ্গে জড়িত নই। আচ্ছা ম্যানেজারবাবু, আমার সঙ্গে কথা বলতে বলতে আপনি দুবার পায়চারী করলেন। আপনার ত পাইলসের প্রবলেম। ব্যাথা হচ্ছে কি?
ম্যানেজার: পাইলস! না না আমার এমন কোন রোগ নাই।
কাস্টমার: আমি মানুষ দেখলেই বুঝতে পারি কার কি রোগ। আপনার আলবৎ পাইলস আছে।
ম্যানেজার: অসম্ভব। একদমই নেই।
কাস্টমার: আপনার পাইলসের প্রবলেম আছে। কালকের মধ্যেই ভীষণ ব্যাথা অনুভব করবেন। আর আমি এই জন্য এক লাখ টাকার বাজী রাখতে পারি।
ম্যানেজার সকালেই শরীর চেক আপ করিয়ে এসেছে। তাই সে নিশ্চিত এবং এক লাখ টাকার বাজীতে রাজী হয়ে গেল।
কাস্টমার: ঠিক আছে। আমি কাল সকালে আপনার এখানে ডাক্তার নিয়ে আসব।
পরদিন সকালে এক ডাক্তার এবং আরও দুজন লোক সঙ্গে নিয়ে কাস্টমার হাজির। ম্যানেজার প্যান্ট খুলে ডাক্তারকে দেখাল। 
ডাক্তার বলল যে পাইলস নেই। কাস্টমার বসে বসে হাসছে।
তাই দেখে ম্যানেজার বলে উঠল: আপনি হেরে গিয়েও হাসছেন যে!!
কাস্টমার: আমার সঙ্গে এই যে দুইজন লোক দেখছেন, এদের সঙ্গে আমি দুই দুই লাখ টাকার বাজী ধরেছি। আপনাকে এক লাখ দিয়ে আমার তিন লাখ থাকবে। 
এদের সঙ্গে আমার বাজী ছিল, ম্যানেজারের চেম্বারেই ম্যানেজারের প্যান্ট খোলানো নিয়ে! :D :D

0 comments:

Post a Comment