Saturday, June 16, 2018

বেঁচে থাকাটাই আসল "চ্যালেঞ্জ

বেঁচে থাকাটাই আসল "চ্যালেঞ্জ
Upset Girl - Valobasa

এই তো .. হোলির আগের দিন, পাশের পাড়া, ক্লাস এইটের ছেলে, স্কুল থেকে হোলি খেলে ফেরায় মা বকাবকি করল, গায়ে হাত তুলল, ব্যস!ওইটুকু ছেলে আত্মহত্যা করল, কাল খবরে পেলাম হাওড়ায় মা ফেসবুক করতে বারন করায় আত্মঘাতী মাধ্যমিকের ছাত্রী।
বিগত ১ মাসে নাকি দিনহাটায় ৭-৮টি আত্মহত্যা হয়েছে, 
সব ছেলে-মেয়ের বয়েস নাকি ১৪-১৭ ... ! 
প্রতিনিয়ত পেপার ঘাটলে হয়তো প্রতিদিনই এরকম কিছু চোখে পড়ে।
ভাবছেন ব্লু-হোয়েল ? 
না তার থেকেও ভয়ানক গেম "প্রেম-গেম"
জীবনের প্রথম বিশ্বাসঘাতকতা বা প্রতারণা হয়তো নিতে পারছে না সদ্য বেড়ে ওঠা Teenager গুলি ..। 
জীবন কি এতই সস্তা? 
কিন্তু এর থেকে কিছু ব্যাপার উঠে আসছে অবশ্যই যেটা নতুন Generation এর ছেলেমেয়েদের অবশ্যই মাথায় রাখা উচিত, শেখাও উচিত । 
১. প্রথমত আগে তোরা নিজেকে ভালোবাসতে শেখ, নিজেকে ভালোবাসতে না পারলে অন্যকে কিভাবে ভালোবাসবি? 
২. "তোমায় ছাড়া বাঁচবো না" এই চিন্তাধারা মাথা থেকে বের করতে হবে, হ্যাঁ! 
কাছের কেউ ছেড়ে গেলে কষ্ট হয়, তার সাথে কাটানো স্মৃতিগুলো বুকে জাকিয়ে বসে, কিন্তু আত্মহত্যা এর সমাধান নয়।
আত্মহত্যা কখনোই কোন কিছুর সমাধান হতে পারেনা, আর জীবনের থেকে মূল্যবান এই নশ্বর পৃথিবীতে কিচ্ছু নেই.. কিচ্ছু না.. । 
সময় সবকিছু বদলে দেয়, ঘা শুকিয়ে দেয়, নিজেকে একটু সময় দে, অপেক্ষা কর, দেখবি জীবনকে আবার ভালোবাসতে শুরু করেছিস। এটা মনে রাখিস, যারা সত্যিকারের ভালোবাসে, তারা কখনো ছেড়ে যায়না, তাহলে ভেবে দেখ যে ছেড়ে গেল, ভালোইবাসলো না তার জন্যে জীবনটাই দিয়ে দিবি? 
যারা সত্যিকারের ভালোবাসে ( যেমন মা-বাবা-ভাই-বোন) তাদের জন্যে বাঁচতে পারবি না? 
৩. প্রেম-ভালোবাসা আজকাল খোলামকুচির মতো, ঠুনকো, দুদিনের প্রেমিক/প্রেমিকার ভালোবাসা পাওয়ার জন্য আত্মহত্যা করলি ..আর যারা তোকে জন্ম দিল, যত্নে-আদরে-স্নেহে-ভালোবাসায় এত বড় করে তুলল, সেই মা-বাবার ভালোবাসার কি দাম দিলি? 
তাদের ভালোবাসা কিন্তু ঠুনকো নয়, বুকের রক্ত জল করে , কষ্ট করে, তোর অভাব-অনটন মিটিয়ে তোকে বড় করে তুলেছিল, তাদের কথা কি একবারও মাথায় এলো না? 
তোদের শুধুমাত্র তোদের প্রেমিক-প্রেমিকারা ভালোবাসেনা, তোদের কাছের মানুষ, মা-বাবা-ভাই-বোন..তারাও ভালোবাসে, তাদের কথাও একটু ভাবিস । 
৪. বয়সটা খুব ভয়ংকর, ১৩-১৯ .. সামান্য কিছু হলেই আমরা অন্ধকার দেখি, ভেঙে পড়ি, এই বয়সে অভিজ্ঞতা ও জীবনবোধের অভাব ঘটে প্রচন্ড, সহজেই ব্রেন ওয়াশ করা সম্ভব, ব্লু-হোয়েলে আত্মঘাতী ৯৫% শতাংশ ছেলে-মেয়ের বয়েস ১০-১৯। 
তাই এই বয়সের আমার সকল ভাই-বোনদের উদ্দেশ্যে বলছি, তোর সাথে কোন কিছু খারাপ ঘটলে মা-বাবা, দাদা, দিদি, ভাই, বোন..বা খুব ভালো বন্ধু তার সাথে শেয়ার কর, নিজে কোন বড় পদক্ষেপ নিস না...। একটা উপায়, একটা সাজেশন, একটা মতামত জীবন বদলানোর ক্ষমতা রাখে । 
জীবন একটাই, জীবনের থেকে মূল্যবান কিছু নেই, সেটা সবসময় মাথায় রাখিস । 
৫. গুরুজনদের বলছি, এই বয়েসটা খুব সেন্সিটিভ, বাড়ির লোকের একটু নজরদারি , একটু শাসনে রাখা উচিত ছেলে-মেয়েদের, যা বর্তমান প্রজন্মে ক্রমশ হ্রাসমান, এই বয়েসটি শেখার বয়েস, অভিজ্ঞতা সঞ্চয়ের বয়েস, যে কোন পরিস্থিতি মোকাবিলা করার শিক্ষা দরকার, ছেলে-মেয়ের সাথে ফ্রেন্ডলি মিশুন, আর তাদের শিক্ষাও দিন, একটু শাসনে রাখুন, নইলে ভবিষ্যৎ খুব মারাত্মক হতে চলছে (উদাহরণ ব্লু-হোয়েল) ।
.
.
শুধু এটুকুই বলার আত্মহত্যা কখনোই কোন সমাধান হতে পারে না, জীবনে খারাপ সময় চলছে? 
খুব খারাপ সময়? 
সেই খারাপ সময়কে "সময়" দে, ঠিক কেটে যাবে .. এভাবে মা-বাবার চোখের জলের কারন হয়ে দাঁড়াস না, তারা এসব দেখার জন্যে তাদের বুকের রক্ত জল করে তোদের বড় করে তোলে না.. একটু অপেক্ষা কর, আবার নতুন সকাল আসবে ..😊
কখনো শুনেছিস যে ২৪-২৫ বছরের যুবক যুবতী ব্লু-হোয়েলে আত্মঘাতী হয়েছে? ৯৫% আত্মঘাতীর বয়েস ১১-১৯ .. তাই একটু অপেক্ষা, একটু ধৈর্য, এক সময় দে নিজেকে, এখানে মৃত্যু নয়, বেঁচে থাকাটাই আসল "চ্যালেঞ্জ" । 
ভালো থাকিস তোরা! 😊
~ অপূর্ব ©

Thursday, June 14, 2018

একটা বৃষ্টি ভেজা রাত

আজ একটা বড় গল্প আপনাদের জন্য।
অবশ্যই ভালোবাসার গল্প, কস্টের গল্প, ভালোবেসে কষ্ট পাওয়ার গল্প।
তো শুরু করি।
Bhalobasar Golpo - Valobasa
প্রায় রাতে রুপা আমাকে ফোন করে ওয়েটিংয়ে পেত।
আমি কথা ঘুরিয়ে বলতাম ' বাবু আমার ফ্রেন্ড কল করেছিল। রুপা আমার কথা বিশ্বাস করে বলত আচ্ছা
ঠিক আছে।
আমি শান্তিতে নিশ্বাস ফেলে রুপার সাথে ৫মিনিট কথা বলার পর' বলতাম আমার শরীর খারাপ লাগছে - ঘুমিয়ে যাই? 
রুপা আমার কথা শুনে বলত আচ্ছা ঘুমিয়ে পড় তুমি। 
আমি এই ভাবে দিন দিন রুপাকে এভয়েড করতে লাগলাম। 
আমার এখন আর ওকে ভাল লাগে না। 
আমি এই সম্পর্কে বিরক্ত হয়ে গেছি। 
প্রতিদিন ফোনে কথা বলা ' দেখা করা আমার আর ভালো লাগে না। রুপা এইসব হয়তো বুঝতে পেরেছে তাই আর দেখা করার কথা বলে না।
আমি প্রায় রাতে ওয়েটিংয়ে থাকতাম আর রুপা আমায় বার বার কল করত!! 
সে দিন রাতে ৩টার সময় ফোনে কথা বলছি' তখন হঠাৎ ফোনের দিকে তাকিয়ে দেখি ৫৩টা ফোন কল এসেছে ওয়েটিংয়ে।
আমি ফোন ব্যাক করে শুনতে পারলাম রুপা কান্না করছে!! 
কান্না করে করে আমায় বলল ' আজকে ও কি ফ্রেন্ড কল করেছিল?? আমি রুপার কথা শুনে চুপ করে থাকলাম কিছু বললাম না।

- - দু দিন পর এক বিকালে রুপার সাথে দেখা হল সেই পার্কে। 
যেখানে আমি রুপাকে প্রথম ভালবাসার কথা বলেছিলাম। 
আজ রুপা নীল শাড়ি পরে এসেছে। 
আমায় দেখে রুপা অনেক খুশি। 
আমি ওর মুখ দেখে বুঝতে পারলাম - রুপা খুশিতে ফোন ওয়েটিং এর কথা সব ভুলে গেছে! 
রুপা আমার পাশে বসে আছে। 
রুপা: তুমি খেয়ে এসেছ? 
আমি : হুম। 
রুপা : বাড়ির সবাই ভাল আছে? 
আমি রুপার দিকে তাকিয়ে বললাম ' হুম ভাল আছে। আমি এখানে রুপার সাথে প্রেম করতে আসিনি!! আমি এসেছি এই সম্পর্ককে এখানেই শেষ করতে। আমার ভালো লাগছে না আর এইসব। 
রুপা ব্যাগ থেকে টিফিন বক্স বার করে বলল ' তোমার জন্য নিজে বানিয়ে এনেছি। তোমার প্রিয় খাবার পাটিশাপটা পিঠে ।। 
আমি রুপার দিকে তাকিয়ে বললাম ' আমি কিছু বলতে চাই তোমায়। রুপা তখন টিফিন বক্স খুলে হাতে চামচ নিয়ে বলল - খেয়ে বলো। আমি রুপার মুখে ভালবাসা আর মিষ্টি হাসি দেখতে পাচ্ছি। কিন্তু আমি আমার মন কঠিন করে বলে দিলাম সব' ব্রেক-আপ এর কথা। আমার
কথা শুনে ওর হাত থেকে চামচ মাটিতে পড়ে গেল - তাকিয়ে থাকল অসহায় হয়ে।। 
তারপর বলল '
২বছরের সম্পর্ক আমাদের আর তুমি বলছ এখন ব্রেকাপ !! 
কোথায় হারিয়ে গেল তোমার সেই সব প্রমিস? 
আমার হাতে হাত রেখে করা ওয়াদা।
আমি রুপার কথা শুনে চুপ করে দাঁড়িয়ে আছি কিছু বলছি না। 
রুপা আবার বলল ' মনে আছে বলেছিলে আমার হাত ধরে 'এই জায়গায় দাঁড়িয়ে- রুপা আমি কোন দিন তোমাকে ছেড়ে যাব না! 
রুপা আমি ভালবাসি তোমায়!! কোথায় গেল সেই সব কথা! কোথায়
হারিয়ে গেল দিপ?? 
আমি রুপার কথা শুনে চুপ করে দাঁড়িয়ে থাকলাম। তারপর বললাম ' আমি ভালবাসতাম তোমায় কিন্তু এখন আর বাসি না।
আমায় ক্ষমা করে দাও। মনে কর এইসব শুধু টাইমপাস ছিল আর কিছু না। দয়া করে আমায় ভুলে যাও।
বাবা মা যেখানে বিয়ে দিবে সেখানে বিয়ে কর ' দেখবা অনেক সুখে থাকবা।
Bhalobashar Golpo - Valobasa
- - রুপা আমার কথা শুনে চুপ করে দাঁড়িয়ে 'মাটির দিকে তাকিয়ে আছে। 
ওর চোখ থেকে টপটপ করে জল মাটিতে পড়ছে । 
আমি রুপার কান্না দেখে বললাম ' কান্না করে কি হবে? 
ভালবাসা তো আর জোর করে হয়না। 
আর তা ছাড়া আমার চাকরি নেই - বিয়ে করে তোমায় খাওয়াব কি? রুপা কান্না মাখা চোখ নিয়ে আমার দিকে তাকিয়ে বলল 'জল খেয়ে থাকতে পারব কিন্তু আমায় ভুলে যেও না। 
আমি বললাম' জল  খেয়ে কি জীবন চলে? 
এই সব সিনেমায় হয়' বাস্তবতা অনেক কঠিন!! 
সে দিন রুপা আমার চোখে চোখ রাখতে পারছিল না। 
শুধু কান্না করছিল। আমি ওর কান্না সেদিন দেখতে পাইনি। 
আমি অমানুষ হয়ে গেছিলাম। 
আমাদের ব্রেক-আপ হয়ে গেল। 
আমি রুপার নাম্বার 'ফোন থেকে মুছে দিলাম। 
রুপা মাঝেমধ্যে আমায় কল করত কিন্তু আমি রিসিভ করতাম না। আমার এইসব বিরক্ত লাগতো। 
বিরক্ত লাগার কারণ তখন আমার আরো একটা বড় লোকের মেয়ের সাথে প্রেম হয়ে গেছে। 
মেয়েটা আমায় বিয়ে করতে চায়।
ওর নাম হল ইরা। 
ইরার সাথে প্রথম দেখা হয় আমার একটা শপিং মলে। 
তখনও রুপার সাথে আমার সম্পর্ক ছিল কিন্তু আমি সেই সময় রুপার কথা চিন্তা করিনি। 
ইরা যেদিন প্রথম আমায় বিয়ের কথা বলল ' তখন আমি কোন কিছু চিন্তা না করেই হ্যা বলে দিলাম। 
আমার মনে হয়নি রুপার কথা।
মনে হয়নি একটা বিশ্বাস আমার পথ চেয়ে আছে। 
আর সেই বিশ্বাস এর নাম রুপা।
- - প্রায় প্রতি রাতে রুপা আমায় কল করত আর কান্নাকাটি করতো। আমি বিরক্ত হতাম। 
চুপ করে কান্না করা শুনতাম তারপর বলতাম ' তোমার কান্না করা শেষ' এখন ফোন রাখি? আমি ঘুমাব।
এই বলে ফোন কেটে দিতাম কিন্তু রুপা আমায় আবার ফোন করত তখন আমি বিরক্ত হয়ে ফোন অফ করে দিতাম।। 
সে দিন রাতে ঘুমিয়ে আছি তখন রুপা ফোন করছে। 
আমি ওর কল দেখে বিরক্ত হয়ে বার বার ফোন কাটছি কিন্তু মেয়েটা ভীষণ ছেছড়া!!
কল করছে তো করছেই। শেষমেশ রাগ করে কল রিসিভ করে বললাম' সমস্যা কি তোমার?? 
রুপা আমার কথা শুনে চুপ করে রইল তারপর বলল Happy Birthday To You. 
আমি রুপার কথা শুনে থ হয়ে গেলাম। 
আজকে আমার জন্মদিন?? 
আমি ভুলেই গিয়েছিলাম। ইরা আমায় একবারও ফোন করে কিছু বলল না অথচ রুপা ঠিক সেটা মনে রেখেছিল। 
আমি সে দিন রাতে রুপার সাথে একটু ভাল করে কথা বললাম। 
আমি রুপার কন্ঠ শুনে বুঝতে পারলাম ওর শরীর ভাল না। 
রুপা ফোন রাখার আগে বলল ' চিন্তা কর না আমি আর ফোন করব না। 
ভালো থেকো নিজের খেয়াল রেখো । 
এই বলে ফোন রেখে দিল রুপা।।
- - ইরা অবশ্য পরের দিন আমার জন্ম দিনের উইস করল আর বলল' বাবু আমি ঘুমিয়ে গেছিলাম রাতে। প্লিজ রাগ করো না। আমি আর ইরার উপর রাগ করে থাকতে পারলাম না। ইরাকে পেয়ে আমি
রুপার কথা ভুলে গেলাম। এখন আর রুপা আমায় কল
করে না। আমি এখন ইরা নিয়ে বেস্ত। ইরা প্রতিদিন
আমার সাথে দেখা করতো কফি শপে। এই ভাবে দিন
চলতে থাকে। আমাদের ভালবাসা বাড়তে থাকে। রাতে
খাওয়া দাওয়া করে ঘুমিয়ে আছি তখন একটা নাম্বার থেকে ফোন আসে। আমি ফোন রিসিভ করে জানাতে পারলাম" এই নাম্বার রুপার ফ্রেন্ড আকাশের।
আকাশ আমায় বলল ' দাদা আপনি কেন এমনটা করলেন রুপার সাথে? রুপা না খেয়ে থাকে -কারো সাথে কথা বলে না। বাড়িতে একা বসে কান্না করে।
দাদা ওর অবস্থা খুব খারাপ। 
এই ভাবে চলতে থাকলে রুপা বাঁচবে না!! 
আমি আকাশের কথা শুনে রাগে ফুলে গিয়ে বললাম ' তোর যখন এতো চিন্তা রুপাকে নিয়ে তা হলে তুই ওর সাথে প্রেম করিস না কেন সালা??
Ekti Bristi Veja Rat - Valobasa
- - আকাশের সাথে কথা বলার সময় - ইরা ৩/৪ বার ফোন ওয়েটিংয়ে পেয়েছে আমার। 
আমি কল ব্যাক করে দেখি মেয়েটা মন খারাপ করে বসে আছে।
আমায় বলল ' তুমি কার সাথে প্রেম করছিলে দিপ?
আমি বললাম কেউ না ইরা ভাই ফোন করেছিল।
কিন্তু ইরা আমার কথা শুনল না। 
মন মরা হয়ে কথা বলল। 
আমি বুঝতে পারলাম ' মেয়েটা আমায় অনেক ভালবাসে। আমি পরের দিন ইরা সাথে দেখা করলাম।
ইরা আমার সামনে মন খারাপ করে বসে আছে। 
আমি চকলেট দিয়ে বললাম ' আমি সত্যি কাল রাতে কোন মেয়ের সাথে কথা বলিনি  ইরা। 
অনেক বোঝানোর পর ইরা আমার দিকে তাকিয়ে বলল ' আচ্ছা বিশ্বাস
করলাম তোমায়। 
আমি ইরার কথা শুনে শান্তিতে নিশ্বাস ফেললাম। 
ইরা আমার হাতে হাত রেখে বলল' আমি তোমায় ছাড়া বাঁচবোনা দিপ। আমি শুধু তোমাকে ভালবাসি - বিশ্বাস করি। 
আমার বিশ্বাস নষ্ট করে দিও না।। আমি ইরার কথা শুনে চুপ করে
থাকলাম। 
চিন্তা করতে থাকলাম মেয়েটা আমায় কত ভালবাসে। তারপর বললাম 'না ইরা আমি তোমাকে ছেড়ে কোথাও যাব না ।'
- - আমি কথা বলা শেষ করার সাথে সাথে একটা ছেলে এসে আমাদের পাশে দাঁড়াল। 
ইরা ছেলেটাকে দেখে চমকে গেল। 
ছেলেটা বলল ' তুমি এখানে কি করছ ইরা?? তুমি না বললে ' তোমার শরীর খারাপ বের হতে পারবা না! 
আমি এইসব শুনে হা।
জানাতে পারলাম এই ছেলেটা ইরার BF.. ইরা ছেলেটিকে বলল' জান আমি কাজিন এর সাথে দেখা করতে এসেছি। আমি ইরার কথা শুনে হা করে বসে আছি!!!
- - রাতে দাঁড়িয়ে আছি ছাদের। 
আজ রুপার কথা অনেক মনে হচ্ছে। 
আমি খারাপ একটা মেয়ের জন্য রুপার মতন ভাল মেয়েকে ছেড়ে দিলাম! 
আমি কেন বুঝতে পারলাম না - যে মেয়ে প্রথম দেখাতে Love
You বলতে পারে " সে মেয়ে কেমন হতে পারে!!
আমি সে দিন রুপার কান্না দেখিনি। আমি মানুষ না।
নিজের অজান্তে আমার চোখ থেকে জল পড়ল মাটিতে। 
রাতে অনেক গুলো ঘুমের ঔষদ খেয়ে ঘুমিয়ে গেলাম। 
আর কিছু বলতে পারি না। 
চোখ খুলে দেখি হাসপাতালে আমি। পাশে মা আর বন্ধুরা। 
মা কান্না করছে। বাবা বাইরে ডাক্তারের সাথে কথা বলছে।
আমি হাসপাতাল থেকে ২দিন পর ছাড়া পেলাম।
বাড়ি এসে শুয়ে আছি বিছানায়। 
রুপার কথা অনেক মনে হচ্ছে। আমি মাকে বললাম ' মা আমার ফোনটা দিয়ে যাও। 
মা ফোন দিয়ে চলে গেল। আমি ফোন হাতে নিয়ে ফেসবুক
ওপেন করলাম। 
দেখি অনেক গুলো মেসেজ জমে আছে।
তারপর যা দেখলাম তা দেখে আমি নিজের চোখকে বিশ্বাস করতে পারলাম না। 
দেখি রুপার বন্ধুদের স্ট্যাটাস - - - রুপা এই পৃথিবীর মায়া ছেড়ে চলে
গেছে!! রোড এক্সিডেন্টে মারা গেছে রুপা ২দিন আগে!!! আমার মাথা কাজ করা বন্ধ করে দিল। আমি ফোন রেখে ছুটে গেলাম রুপার কাছে।।

- - আমি বসে আছি রুপার কবরের সামনে। চোখ থেকে জল টপটপ করে পরছে মাটিতে। আমি তাকিয়ে আছি মাটির নিচে ঘুমন্ত রুপার দিকে।
আমার মনে হল সে দিন এর কথা। 
সেই দিন রুপা আমায় বলেছিল' দিপ আমি জল খেয়ে থাকতে পারব
তোমার সংসারে কিন্তু আমি তোমাকে ছাড়া বাঁচতে পারব না। 
আমি রুপার কথা চিন্তা করে করে কান্না করছি। 
আমি পাগল হয়ে যাচ্ছি। 
আকাশের দিকে তাকিয়ে বললাম' হে ঈশ্বর - আমার ভুল হয়ে
গেছে। আমি আর ভুল করবনা। আমার কাছে রুপাকে
ফিরিয়ে দাও।। 
আকাশে মেঘ জমে আছে। 
আমি কান্না করছি তখন মেঘে বিশাল জোরে গর্জন করে উঠল। 
আমি চমকে গিয়ে উঠে বসলাম বিছানায়।
দেয়াল ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখি রাত ২টা!! 
আমি কি এইসব স্বপ্নে দেখেছি এতো সময়?? 
আমি ভয়ে ঘেমে গেছি!! 
তা হলে কি ইরা নামের কেউ নেই? 
আর রুপার সাথে আমার ব্রেক-আপ হয়নি? 
আমি ফোনে ডায়াল লিস্ট দেখলাম। ইরা নামের কারো নাম্বার নেই ' সব নাম্বার রুপার। 
এর মানে এতো সময় সব কিছু আমি স্বপ্নে দেখছিলাম!! 
আমি পাগলের মতন বাইরে গেলাম। গিয়ে দেখি বাইরে
সত্যি বৃষ্টি হচ্ছে আর মেঘ ডাকছে । আমি বাইক নিয়ে রুপার বাড়ির সামনে এসে দাঁড়ালাম। 
বৃষ্টিতে আমি ভিজে গেছি। 
Boy In Rain - Valobasa

আমি রুপাকে ফোন করে বারান্দায় আসার কথা বললাম। 
রুপা বারান্দায় এসে ' এতো রাতে আমাকে দেখে অবাক হয়ে গেল। বলল 'পাগল হয়ে গেছো তুমি?? 
আমি বললা ' হ্যা রুপা তোমার প্রেমে আমি পাগল হয়ে গেছি। তোমাকে দেখতে ইচ্ছা করছিল তাই চলে এসেছি।। 
আমি নিচে থেকে উপরে বারান্দায় দাঁড়িয়ে থাকা রুপার সাথে
ফোনে কথা বলেছি। 
রুপা হাসি দিয়ে বলল "পাগল একটা। এই বলে ভেতরে গিয়ে একটা ছাতা এনে উপর থেকে আমার দিকে ছুড়ে দিল।
- - আমি ছাতা হাতে দাঁড়িয়ে আছি।
আশেপাশে কেউ নেই। বৃষ্টি হচ্ছে ঝমঝমিয়ে। রুপা আমার দিকে
তাকিয়ে আছে বারান্দা থেকে আর আমি তাকিয়ে

আছি রুপার দিকে। মন ভরে দেখছি দুজন দুজনাকে।।

Wednesday, June 13, 2018

বল্টূ আবার বড়লোক

অনেক দিন পর আবার বল্টু। 
দেখা জাক বল্টু এখন কি করছে। 
Boltu Mojar Funny Bengali Story
ছবিটা দেখলেন তো?
না দেখলে পড়ুন আর কি বুঝলেন সেটা বলার দরকার নেই। 

বল্টু হাসপাতালে শেষ নিশ্বাস নিচ্ছিলো।
বেডের পাশে নার্স, বল্টুর বউ, দুই ছেলে ও এক মেয়ে।
এবার বল্টু বলতে লাগলো তোমরা সবাই আমার প্রিয় তাই সবাইকে সব ভাগ করে দেব।
বল্টু বড় ছেলেকে বলল কলকাতার ১৭টি বাড়ি তুই নে।
ছোট ছেলেকে বললো তোমাকে আমি খুব পছন্দ করি তাই ভীমপুরের ২০টি বাড়ি তোমার।
এবার বল্টু তার বউকে বললো আমার যাবার পর তোমাকে যেন কারো কাছে হাত পাততে না হয় তাই দমদমের ১৫টি ফ্লাট তোমাকে
দিলাম।
নার্সতো পুরো অবাক এই ছেড়া কাপর পড়া বৃদ্ধ এত বড়লোক!
এবার নার্স বল্টুর বউকে বলতে লাগলো আপনার অনেক বড় ভাগ্য যে আপনার স্বামী আপনাকে কত সম্পত্বি দিয়ে যাচ্ছে।

এবার বল্টুর বউ বলতে লাগল কিসের সম্পত্বি?
\
/
\
/
\
/
ও হলো দুধওয়ালা।
এতক্ষন উনি আমাদের সকালের দুধ দেওয়ার

ডিউটি ভাগ করলেন।

Sunday, June 10, 2018

প্রেয়সী

কেমন আছেন?
জানি ভালোই আছেন। 
তবে আপনারা কেউ কমেন্ট করেন না , এটা আমার ভালো লাগেনা।
এখন প্রতিদিন ২০০০০ লোক আমাদের ভালোবাসা.ইন ভিজিট করছেন। তবুও কমেন্ট নেই একটাও এটা মেনে নেওয়া যায় বলেন?
শুরু হচ্ছে...,
গোপেনবাবুর গোপন অ্যাফেয়ার..!!!

গোপেনবাবুর এই অভিসারের ব্যাপারটা বাড়ির লোকেরা আন্দাজ করে, কিন্তু কেউই ঠিকমতো ধরতে পারেনা। 
বাড়ির লোকজন বলতে সদা সন্দিগ্ধা স্ত্রী, কলেজ পড়ুয়া ছেলে আর স্কুলে পড়া মেয়ে।

গোপেনবাবুর বউ তার স্বভাব জানে, তাই তার ওপর কড়া নজর রাখার চেষ্টা করে। 
ছেলেও ঠারেঠোরে তার দিকে চোখ রাখে, তাও তিনি জানেন। রাখবে না? 
হতচ্ছাড়া ছেলেগুলো যে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মায়ের চামচা হয়!

কিন্তু প্রতিবারেই এই অভিসারের পর তিনি সবচেয়ে ভয় পান তার মেয়েকে। 
ছোট হলে কি হবে? 
অসাধারণ পর্যবেক্ষণ ক্ষমতা তাঁর মেয়ের! 
কতবার যে বাড়ি ফিরে মেয়ের হাতে ধরা পড়তে পড়তে বেঁচে গিয়েছেন, তা বলার নয়!...

তিনি দিব্যি কাজকর্ম সেরে নিপাট ভালোমানুষের মতো ঘরে ঢুকে দেখেছেন, মেয়ে তাঁর দিকে একটা অদ্ভূত দৃষ্টি দিয়ে তাকিয়ে আছে! 
সে দৃষ্টি এতই তীক্ষ্ণ, যে অনেক সময়ে গোপেনবাবু তার চোখে চোখ পর্যন্ত রাখতে পারেননা!...

তারপর মনে মনে বহু সাহস টাহস জোগাড় করে, গলা টলা ঝেড়ে যতদূর পারেন স্বাভাবিক গলায় মেয়ের দিকে তাকিয়ে বলেন, "কিরে, কিছু বলবি?"

মেয়ে কোনো উত্তর দেয় না, আবার চোখও সরিয়ে নেয় না। 
শুধু একভাবে তাকিয়ে একটা ছোট্ট দীর্ঘশ্বাস ফেলে। 
এই ব্যাপারটাকেই তিনি বড্ড ভয় পান! হাঁটু দুর্বল হতে থাকে! 
মনে হয় ও সব বুঝে ফেলেছে!

সপ্তাহের অন্য দিনগুলোতে যা হোক তা হোক, অফিস ফেরত প্রেয়সীর ওখান থেকে অল্প ঢুঁ মেরে আসা যায়। 
সমস্যাটা হয় ছুটির দিনে, শনি আর রবিবারে। 
শনিবার'টা তা'ও কোনো রকমে কাটিয়ে দেন, কিন্তু রবিবার আর পারেন না! 
যেকোনো ছুতোয় ওখানে গিয়ে লম্বা সময় উপভোগের জন্যে মন উশখুশ করতে থাকে!

আজও বহু বায়নাক্কা করে, সকাল থেকে গুটির পর গুটি সাজিয়ে রবিবারের বিকেলে গোপেনবাবু এসে পৌঁছলেন বড় রাস্তার মোড়ে গাড়ি রেখে সাড়ে তিন মিনিট হেঁটে বাঁদিকে চার নম্বর গলির সেই গোলাপী রঙের বাড়িটার সামনে...

মনটা খুশিতে ভরে গেল! এই তো জীবন! 
একটা ভর ভরন্ত সংসার, নিশ্চিন্ত রোজগারের পর আর এই একটাই জিনিস তো চান তিনি জীবনে... বয়স যত বাড়ছে, ততো বাড়ছে এই টান!... 
এদিক ওদিক তাকিয়ে দেখে নিয়ে টুক করে ঢুকে পড়লেন তিনি!

প্রচুর লোকজন চারিদিকে। 
তার মধ্যেই একটা টেবিল দখল করে বসে হাঁক পাড়লেন, "কই দেখি, এক প্লেট হিংয়ের কচুরি, দুটো সিঙাড়া, আর চারটে ছানার জিলিপি এদিকে..!!!"

আসলে, গোপেনবাবুর বয়স হয়েছে, তাই প্রেশার, সুগার, ইত্যাদি বেড়ে যাওয়ার ভয়ে বাড়িতে খাওয়া দাওয়া ভীষণ রেস্ট্রিক্টেড, ভালো খাবার বিশেষ কিছুই জোটে না। 
বাড়ির লোকের কঠোর নজর তার খাওয়া দাওয়ার দিকে!

এ জীবনে গোপেনবাবু বেঁচে আছেন এই প্রেয়সীর জন্যেই...

*"প্রেয়সী মিষ্টান্ন ভান্ডার" -*

সকল প্রকার মিষ্টান্ন ও মুখরোচকের বিশ্বস্ত প্রতিষ্ঠান ।
  সংগৃহীত

Sunday, June 3, 2018

পড়ুন আর একটু ভাবুন

যেটা আজ আমরা করছি।
সেটা কি ঠিক করছি?
পড়ুন প্রথম থেকে শেষ, বুঝতে পারবেন আমি কি বলছি!
১. স্কুল থেকে ফিরতে না ফিরতেই সায়ক চেঁচিয়ে বলে উঠলো,
"মা তাড়াতাড়ি খেতে দাও,খুব ক্ষিদে পেয়েছে।"
"কেন টিফিনে খাসনি আজকে? 
চাউমিন করে দিলাম যে!" 
"মা জানো! রাজা আজকে কিছু খেয়ে আসেনি, ওর মায়ের খুব শরীর খারাপ...তাই আমার টিফিনটা আজকে ওকে দিয়ে দিয়েছি।"
"সারাদিন মুখে রক্ত উঠে, তোমাদের জন্য রান্না করবো আর তুমি দাতা কর্ণ সাজছো! 
এরপর থেকে আর যদি কাউকে কোনদিনও নিজের টিফিন দাও তবে....টিফিন কেন, কোনোকিছুই দেবে না।"
পিঠে ঘা কতক কিল খেয়ে পঞ্চম শ্রেণীর শিশুটি বুঝতে পারেনা তার অন্যায়টা কোথায়! 

২০ বছর পর -
উচ্চপদস্থ সায়ক লাহিড়ী মাকে গাড়িতে তুলে বৃদ্ধাশ্রমে রেখে আসার পথে বোঝাতে লাগল নতুন বৃদ্ধাশ্রমটি কত ভালো। 
সেখানে তিনি অনেক সুখে থাকবেন।
গাড়ির পিছনের কাচ দিয়ে, নিজের ভিটেটুকু দেখতে দেখতে বৃদ্ধা বুঝতে পারেননা। 
তার শিক্ষার গলদটা কোথায় ছিল!!! 

২. মাথা নীচু করে বসে থাকা মেয়েটার দিকে তাকিয়ে তার বাবা গম্ভীর কণ্ঠে বলে উঠল, "নিজে পড়ে জয়েন্টে ভালো rank করেছো ঠিকই কিন্তু পড়তে তো হবে প্রাইভেটেই...! 
আবার তোমার ভাইও বলেছে ইঞ্জিনিয়ারিংই পড়বে। 
এত খরচা আমার পক্ষে করা সম্ভব নয়। 
তুমি জেনারেলে গ্রাজুয়েশনটা করো। 
আর অমিয় বাবুর সাথে কথাটা বলাই আছে। 
বিয়েটা হয়ত সেকেন্ড ইয়ারেই হয়ে যাবে তোমার। 
ছেলে হিসাবে তোমার ভাইএর চাকরী পাওয়াটা বেশী দরকার।"

২০ বছর পর -
টেলিফোনে মেয়ের কান্নার আওয়াজ- "বাবা আমায় ক্ষমা কর। আর আমাদের বাড়িতে কোনদিনও এসো না। 
তোমার শেষ কেমোথেরাপির পর তোমার জামাই অমর কে বলেছিলাম, বাবা এরপর থেকে আমাদের সাথেই থাকুক, ভাইও বিদেশে। 
তার উত্তরে আমাকে বললো, 'নিজের তো এক পয়সা রোজগার করার মুরোদ নেই, একটা পাতি গ্রাজুয়েট...এখন নিজের সাথে সাথে নিজে বাবাকেও আমার ঘাড়ে....লজ্জা করল না বলতে'?"

৩. রান্নাঘরে ৫ মাসের অন্তঃস্বত্বা বউমাকে আদা-রশুনটা দিয়ে শাশুড়ি কাটা কাটা স্বরে জানালো, "বউমা আমাদের বাড়ির নিয়মই হলো, শিলে বাটা মশলা ছাড়া রান্না করিনা, আর সকালের খাবার বাড়ির ছেলেদের খাবার আগে খাইনা"। 
ঘড়ির কাঁটা ৯.৩০ ছুঁই ছুঁই। 
সকালে উঠে, অশক্ত শরীরে মশলা বেটে স্বামীর পাতের গরম ভাতের দিকে দু-পেট ক্ষিদে নিয়ে আড়চোখে তাকিয়ে কিশোরী মেয়েটা....।

২০ বছর পর -
পক্ষাঘাতে শয্যাশায়ী বৃদ্ধা মহিলাটি, বার বার ঘড়ির কাঁটার দিকে আর দরজার দিকে তাকাচ্ছেন। 
ঘড়ির কাঁটা ১১টার ঘরে। 
বউমা এখনো খাবারটা দিয়ে গেল নাতো!!

৪. সরকারি উচ্চপদস্থ কর্তা আবেশ সাহা হুইস্কির গ্লাসে চুমুক দিতে দিতে বউ এর গলার হিরের হারের দিকে তাকিয়ে লঘু হাসিতে বলে উঠলেন, "বুঝলে কিনা, আমি তো নিই স্পিড মানি। 
মানে ক্লায়েন্টের টাকায়, তাদের কাজটা একটু স্পিডে করে দেওয়া...আর বদমাইশগুলো এটাকে বলে ঘুষ..!" 
পাশে বসা দশ বছরের রকি বাবার আনা দামী প্লে-স্টেশনে গেম খেলতে খেলতে বাবার মুখের দিকে আনমনে একবার তাকিয়ে নিল। 

২০ বছর পর -
মদের নেশায় আকন্ঠ চুর রকি সাহা, এক লাথিতে শোবার ঘরের দরজাটা খুলে দিয়ে ভীত সন্ত্রস্ত বৃদ্ধ সাহা দম্পতিকে বলে উঠল,"দশ হাজার টাকা বার করে দাও এখুনি। 
আজ সারারাত মস্তি!" 
"দিনের পর দিন আমাদের উপর এই অন্যায় অত্যাচার...রকি, এটা ঘোর পাপ..ঘোর পাপ"..থরথর কন্ঠে বলে উঠলেন আবেশ সাহা। 
"হাঃ হাঃ! সারাজীবন নিজে ঘুষের টাকা নিয়ে....এখন আমাকে এসেছে নীতিকথার গপ্প মারাতে.....চাবিটা দাও।" 


সমাজের বুকে ঘটে যাওয়া একটুকরো কোলাজ.....!!! 
ভাববেন, শেয়ার করবেন।

Thursday, May 17, 2018

অ্যারেঞ্জড ম্যারেজেও ভালোবাসা হয়

অ্যারেঞ্জড ম্যারেজেও ভালোবাসা হয়। 
Love in Arranged Marriage
Love in Arranged Marriage

বাসর ঘরে ঢুকে পাশে বসতেই বৌ আমাকে বলল,
----------------ঘড়িতে তাকিয়ে দেখুন তো কয়টা বাজে??
বাসর রাতে বৌয়ের এমন সাহসী প্রশ্নে কিছুটা বিচলিত হলাম।
তখন ঘড়িতে তাকিয়ে দেখি রাত ২.৩০মিঃ।
আমি বৌয়ের পাশে বসে আস্তে করে বললাম----
শোনো, আমার এখন বিয়ে করার কোন ইচ্ছেই ছিলো না। 
আমার বাবা-মায়ের পছন্দেই তোমাকে বিয়ে করেছি।
তবে আমার কারো সাথে কোন সম্পর্ক ও নেই।
কিন্তু আমি বিয়ের জন্য মানসিক ভাবে প্রস্তুত ছিলাম না।
তাই আমি এখন চাইলেও এত সহজে তোমাকে বউ হিসেবে মানতে বা বৌয়ের অধিকার দিতে পারবোনা।
কথা গুলো বলে শেষ করা মাত্রই নতুন বউ আমার পাঞ্জাবির কলারটা চেপে ধরে বলল,
--------------আমাকে কি খেলার পুতুল মনে হয় নাকি??
পছন্দ হয়নি, বিয়ে করতে চাননি এইটা আগে বলতে পারলেন না??
নিজের মায়ের মন রক্ষা করতে আমার সব আশা-স্বপ্ন কে কেন বলিদান দিতে হবে?
বিয়ে করার ইচ্ছে নেই, এইটা আমাকে আগে বললেই পারতেন।
তবেই আমি আমার পক্ষ থেকে বিয়ে ভেঙে দিতাম।
মায়ের প্রতি ভন্ড ভক্তি শ্রদ্ধা দেখাতে গিয়ে আমার জীবনটা কেন এইভাবে নষ্ট করে দিলেন হুম?
আমি তো আপনার কোন ক্ষতি করিনি।
এখন আমি যেভাবে বলব সেভাবেই সব হবে। ঠিক আছে????
বলেই কলার টা ছেড়ে দিলো।
পরে আবার বলল....
----আচ্ছা যা হবার তা তো হয়েই গেছে।
দিতে হবে না আপনাকে বউয়ের অধিকার।
যান নিচে গিয়ে ঘুমান।
একদম খাটে ঘুমাতে পারবেন না।
বলেই আমার বালিশ পা ফ্লোরে ছুড়ে মারলো।
আমি ও বাধ্য ছেলের মতো ফ্লোরেই শুয়ে পড়লাম।
আর মনে মনে ভাবতে লাগলাম, কেমন গুন্ডি মেয়ে রে বাবা।জীবনেও এমন মেয়ে দেখিনী।
মনে তো হচ্ছে জীবন পুরাই তেজপাতা করে ছাড়বে।
|
|
ফ্লোরে ঘুমই আসছেনা।
কখনই ফ্লোরে ঘুমাইনি।
কিন্ত আজকে নিজের অমতে বিয়ে করার কারনেই ফ্লোরে
ঘুমাতে হচ্ছে।
এর মধ্যে মশার আন্দোলন। 
ইসসসসসস,,,,,,সহ্য হচ্ছেনা।
চোখ বন্ধ শুয়ে করে আছি।কখন জানি ঘুমটা লেগে গেছে
বুঝতেই পারিনি।
হঠাৎই সজাগ হয়ে দেখি আমার শরীরে কম্বল আর পাশে ও মশার কয়েল লাগানো।
মনটাতে একটু স্বস্তি পেলাম,ও মানুষ ভালো, মনে মায়া-দয়া আছে।


পরের দিন ঘুম থেকে উঠেই দেখি টেবিলে চা রাখা।
চা খেয়ে, ফ্রেশ হয়ে রুমে বসে ফোন টিপছিলাম তখনই তানিয়া (আমার বৌ) এসে বললো.....
----এইযে সেই কতক্ষন যাবত খাবার নিয়ে সবাই অপেক্ষা করছে
আর আপনি ঘরে বসে আছেন কেন?
এখনি নিচে চলুন আগে......!!
বলেই আমার কানের কাছে এসে আস্তে করে বললো...
-----নাকি খাবার টা রুমে নিয়ে আসবো?
আমি তো হার্ট এ্যাটাক হতে হতে বেচেঁ গেছি।
আমি তো ভাবছিলাম,বউ বুঝি এইবার ও কলার ধরেই আমাকে খাবার টেবিলে নিয়ে যাবে।
কিন্তু না,বউয়ের স্বর পাল্টে গেছে, তবে কি বউ আমার প্রেমে পড়ে গেল নাকি??
কথাটা ভাবতে ভাবতেই বউয়ের দিকে তাকালাম।
হা হয়ে তাকিঁয়ে আছি, বউ তো আমার হেব্বি সুন্দরী।
রাতে তো ভাবছিলাম হিটলারনি। এখন দেখি না মায়াময়ী।
এইবার যে আমি বউয়ের প্রেমে পড়ে গেলাম।
নিজেই নিজেকে বললাম...
---- মনে হয় তুই তোর হিটলারনি বউয়ের প্রেমে পড়ে গেছিস।
হঠাৎ একটা বিকট শব্দে বাস্তবে ফিরলাম।
সামনে তাকিঁয়ে বউ আমার ফ্লোরে পড়ে চোখ বন্ধ করে
আছে।
বুঝতে পারলাম,পাগলীটা খুবই ব্যথা পেয়েছে।
দৌড়ে গিয়ে টেনে তুলে বসাতে গেলাম আর অমনি আস্তে করে বলল.....
----কেমন স্বামী গো আপনি??
আমি তো একটু ভ্যাবাচ্যকা খেয়ে গেলাম।
বললাম...
----আমি আবার কি করলাম।
বৌ বলল....
----আমি মাটিতে পড়ে আছি কই কোলে করে নিয়ে
বিছানায় শোয়াবেন, তা না করে আমার হাত ধরে টানছেন।
সাথে সাথেই আমি কোলে করে নিয়ে বিছানায় শুইয়ে দিলাম।
আমায় শক্ত করে জড়িয়ে ধরে বলল....
----ইচ্ছে করে এইভাবেই ধরে রাখি সারাটা জীবন।
কিন্তু আপনি তো আমাকে পছন্দই করেন না।
কথা শেষ করেই তানিয়া দীর্ঘ নিঃশ্বাস ছাড়লো।
আমারও বুকের ভিতরটা দুমড়ে মুচড়ে গেল।
আমারো খুব বলতে ইচ্ছা হচ্ছিল, কপালে একটা চুমো একেঁ দিয়ে বলি ...
----পাগলী আমি যে তোমাকে ভালোবেসে ফেলেছি গো।
কিন্তু পারলাম না।
কোথায় জানি একটা বাধাঁ পাচ্ছিলাম।
এই সুযোগে তানিয়া আমাকে ঠেলে বিছানায় ফেলে দিয়ে দৌড়ে পালালো।
আমি শুধু ওর চলে যাওয়ার দিকে তাকিঁয়ে রইলাম।
পরক্ষনেই খেয়াল হলো,ও তো ব্যথা পেয়েছে।
যার কারনে কোলে করে উঠাতে হলো।
বুঝতে আর বাকি রইলো না, এইবারও আমাকে বোকা বানানো হয়েছে।
Arranged Marriage

পাগলিটার সাথে খুনসুটি প্রেম করতে করতেই কেটে গেল
২টা বছর।
এখন কেউ কাউকে ছাড়া কিছু ভাবতেই পারিনা।
আমার পাগলীটা এখন গর্ভবতী।
তাই খুব যত্ন নিই তার।
আজকেই বাচ্চা হবার তারিখ দিয়েছে ডাক্তার।
আমি অফিসে ছিলাম, হঠাৎই বাবার ফোন পেয়ে ছুটে
গেলাম হসপিটাল।
গিয়েই শুনলাম আমার ঘর আলো করে এসেছে এক ছোট্ট রাজকন্যা।
কিন্তু....
আমার পাগলিটার কোন সাড়া শব্দ পাচ্ছিনা কেন??
ভয়ে আৎকে উঠলাম।
অনেকের মুখেই শুনেছি,বাচ্চা জন্ম দিতে গিয়ে মারা গেছে অনেক মা।
সে ভয়েই বাচ্চা নিতে চাইনি।
কিন্তু ওর নাকি বাচ্চা লাগবেই।
ওর ইচ্ছে পূরন করতে গিয়েই কি তবে......???
আর ভাবতেই পারছিনা।
আর একটা মিনিট ও নষ্ট না করে, দৌড়ে গেলাম কেবিনে।
গিয়ে দেখি বাচ্চা টা হাত পা নাড়িয়ে খেলছে।
কিন্তু তানিয়া চোখ বন্ধ করে রেখছে।
ওর নিঃশ্বাস আছে কি নাই তা দেখার মতো ধৈর্য আমার
ছিলোনা।
তাই তানিয়াকে জড়িয়ে চিৎকার করে ফেললাম।
সাথে সাথেই কানের কাছে একটু ব্যথা অনুভব করলাম।
পরে দেখি তানিয়া আমার আস্তে করে কানে কামড় দিয়ে বলল....
-----কি ভাবছিলা তোমাকে একা রেখে চলে যাবো??
আরে না গো, আমি চলে গেলে, তোমাকে জ্বালাবে কে??
আমিও বুকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরে রাখলাম।
আর বললাম,বড্ড ভালোবাসি রে পাগলি তোকে।
ছাড়বোনা কখনই। 💗💗

Monday, May 7, 2018

শুধু Success আর Competition

সময় এখন খুব অল্প, মানুষের কাছে।
সবাই শুধুই ছুটছে,
Heaven
পৃথিবীতে কোন কিছুই success নয়।
এক মৃত ব্যক্তির পকেট থেকে পাওয়া চিঠি :
যখন জন্মালাম বাবা মা ভাবল এটা তাদের success,
যখন হাটতে শিখলাম মনে হল এটাই success,
যখন কথা বলতে শিখলাম মনে হল এটাই success,
ভুল ভাঙল,
এরপর স্কুলে গেলাম, শিখলাম first হওয়াটা success,
এরপর বুঝলাম না আসলে মাধ্যমিকে স্টার পাওয়াটা success,
ভুল ভাঙল,বুঝলাম উচ্চমাধ্যমিকে এই রেসাল্টটা ধরে রাখাই success,
এখানেই শেষ নয়,
এরপর বুঝলাম ভালো সাবজেক্ট নিয়ে ভালো কলেজে চান্স পাওয়াটাই success,
পরে বুঝলাম না কলেজ শেষে চাকরী পাওয়াটা success,
এরপর বুঝলাম না,নিজের টাকায় একটা ফ্ল্যাট কেনাটা success,
সেটাও নয়, নিজের টাকায় এরপর গাড়ি কেনাটাই আসল success,
আবার ভুল ভাঙল,
এরপর দেখলাম বিয়ে করে সংসার করাটাই success,
বছর ঘুরলো, দেখলাম আসলে বিয়ে করে বংশধর এনে তাকে বড় করাটাই success,
ছেলে হলে সে প্রতিষ্ঠিত হওয়াটাই success, মেয়ে হলে ভালো বাড়িতে বিয়ে দেওয়াটাই success,
এরপর এলো রিটায়ারমেন্ট, সারা জীবনের জমানো টাকার সঠিক utilization ই success...
এরপর যখন সবাই মিলে চিতায় উঠিয়ে দিল, তখন বুঝলাম পৃথিবীতে কোন কিছুই success নয় ,

পুরো টাই competition, যার মুলে আকাশ ছোঁয়া আকাঙ্ক্ষা, যা কখনো পূর্ণ হয়না।

Tuesday, May 1, 2018

মানুষ হও

মানুষ আর মানুষ নেই।
সব অমানুষ!

খোদ কলকাতার ঘটনা ! দমদম মেট্রো ! .. 
ভাবুন, শুধুমাত্র আলিঙ্গনের জন্যে যুবক-যুবতীকে গণপ্রহার .. আচ্ছা! সমাজ ব্যবস্থা সামলানোর দায়িত্ব কি এই মধ্যবয়সী/বৃদ্ধ চুতিয়াগুলোকে কে দিয়েছে? এরা কে বলার? কে কি করবে না করবে ? শালা! ওদিকে আবার ভীড় ট্রেন-বাসে-মেট্রোয় এদেরই হাত কনুই ঝুলে পরা চিবি সবথেকে সক্রিয় হয়ে ওঠে, চুলকানির তো শেষ নেই, তারাই আবার দেশের সংষ্কৃতি রক্ষণের জন্যে প্রহার করতে উদ্যত হলেন, This is Irony ! 👏👏 
..
আনন্দবাজারে উজ্জ্বল চক্রবর্তী লিখেছেন : 
চাঁদনি চক থেকে মেট্রোয় উঠেছিলাম। রোজ যেমন উঠি। সোমবার রাত তখন প্রায় পৌনে ১০টা। সঙ্গে আমার এক সহকর্মী। স্টেশন ছাড়তেই একটা উত্তেজিত কথোপকথন কানে এল। আমরা যেখানে দাঁড়িয়েছিলাম, তার থেকে দুটো গেট দূরেই হইচইটা হচ্ছিল।
প্রথমে বুঝতে পারিনি, কোনও গুরুত্বও দিইনি। কারণ পথেঘাটে ও রকম হইচই তো হয়েই থাকে। কিন্তু, সেই গোলমালটা যে একটা দুঃস্বপ্নের চেহারা নেবে কিছু ক্ষণের মধ্যেই, তা একেবারে বুঝতে পারিনি।
এখনও বিশ্বাস করতে কষ্ট হচ্ছে। দশকের পর দশক ধরে যে শহরটাকে চিনি, সেই কলকাতা তলে তলে এত বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে! এত অসংবেদনশীল, এত নিষ্ঠুর হয়ে গিয়েছে শহরটা! এখনও ভাবতে পারছি না। আক্ষরিক অর্থেই দুঃস্বপ্ন মনে হচ্ছে।
বেশ ভিড় ছিল মেট্রোয়। ঠেলেঠুলেই ঢুকতে হয়েছিল ভিতরে। যে সহকর্মীর সঙ্গে ফিরছিলাম, তাঁর পোস্টিং পটনায়। কয়েক দিনের জন্য কলকাতায় এসেছেন। অনেক দিন পরে একসঙ্গে ফিরছিলাম। তাই খোশগল্পে মশগুল ছিলাম। যদি জানতাম, এমন অসভ্যতা এবং বর্বরতার সলতে পাকানো হচ্ছে অন্য দিকে, তা হলে সম্ভবত ও ভাবে মজে থাকতে পারতাম না।
সহকর্মী নেমে গেলেন শোভাবাজারে। তত ক্ষণে বেশ বেড়ে উঠেছে গোলমাল। ভিড়টা সরিয়ে সে দিকেই এগিয়ে গেলাম কৌতূহলের বশে। বুঝলাম, ভিড়ের মাঝে আলিঙ্গনাবদ্ধ যুগলকে দেখে এক জন বড্ড উচাটনের মধ্যে পড়ে গিয়েছেন। কেন মেট্রোয় পরস্পরকে আলিঙ্গন করা হবে? কেন ‘ওরা’ পার্ক স্ট্রিটের কোনও বারে যাবেন না? বা বিছানায়? এমন নানা অবান্তর প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন?

যিনি মূলত প্রশ্নগুলো তুলছিলেন এবং হইচইটা করছিলেন, তিনি বয়সে বেশ প্রবীণ। মাথা প্রায় পুরোটাই সাদা।

সুদর্শন, সুঠাম তরুণ কিন্তু নির্ভীক ভঙ্গিতেই উত্তর দিচ্ছিলেন। তাঁদের আলিঙ্গনে অন্য সহযাত্রীরা কী ধরনের সমস্যায় পড়তে পারেন? বেশ ঠান্ডা গলায় প্রশ্ন করেছিলেন তরুণ। উত্তর খুঁজে না পেয়ে আরও তেতে গেলেন প্রৌঢ়। আরও জোরে চিৎকার করতে লাগলেন।

যুগল কিন্তু তাতেও মেজাজ হারায়নি। তরুণী প্রশ্ন করলেন, ‘‘ভিড়ের মধ্যে যদি আমরা নিজেরা নিজেদের সিকিওরিটির ব্যবস্থা করে নিই, তা হলে আপনার সমস্যা কোথায়?’’ উত্তর নেই প্রৌঢ়ের কাছে এ বারও। অতএব, রেগে আরও কাঁই। আরও চিৎকার। দু’জনকেই গালিগালাজ এবং উচিত শিক্ষা দেওয়ার শাসানি।

তরুণকে কটাক্ষে বিঁধতে গিয়ে প্রৌঢ় এ বার বললেন, ‘‘নিজেকে সলমন খান মনে করছে।’’ এই মন্তব্যে বেশ কৌতুক বোধ করলেন তরুণ। আশপাশের সহযাত্রীদের উদ্দেশে এক গাল হেসে তিনি বললেন, ‘‘আপনারা সবাই শুনলেন তো? উনি কিন্তু আমাকে সলমন খান বললেন। আমি এটা কমপ্লিমেন্ট হিসেবেই নিচ্ছি।’’

সুদর্শন তরুণ বুঝতে পারেননি, আশেপাশে যাঁরা রয়েছেন, তাঁদের মনটা তাঁর মতো তরতাজা নয়। তিনি বুঝতে পারেননি, ভিড়ে ঠাসা মেট্রোয় খোলা হাওয়া খেলছে না, বরং একটা বদ্ধ-দূষিত বাষ্প ঘুরপাক খাচ্ছে। তাই বিপর্যয়টা ঘনিয়ে উঠল দ্রুত।

এত ক্ষণ এক জনই চিৎকারটা করছিলেন। ওই তরুণ তাঁর দিকে কটাক্ষ ছুড়ে দিয়েছেন দেখে এ বার আরও অনেকেরই যেন ‘বিবেক’ জাগ্রত হল। ‘‘এ ভাই, বড্ড বেশি কথা বলছ কিন্তু।’’ গলা চড়ল একে একে। ধমক-ধামক আর নয়, সরাসরি হুমকি শুরু হয়ে গেল— ‘‘দমদমে নাম, তোদের দেখছি।”

তখনও বুঝিনি, এত দূর গড়িয়ে যাবে ঘটনাটা। হুমকি শুনতে পাচ্ছিলাম। কিন্তু দমদমে পৌঁছে সত্যিই ধুন্ধুমার কাণ্ড বাঁধিয়ে দেওয়া হবে, কর্মক্লান্ত একটা দিনের শেষে ঘর-সংসার-পরিবারের কাছে ফেরার তাড়না ভুলে এক ঝাঁক লোক আলিঙ্গনের শালীনতা-অশালীনতার বিচার করতে ব্যস্ত হয়ে পড়বেন, এমনটা আঁচ করতে পারিনি। তাই বিপদটা ঘটে যাওয়ার আগে হস্তক্ষেপ করতে পারিনি।
দমদমে মেট্রোর দরজা খুলতেই ওই যুগলকে হিড় হিড় করে টেনে প্ল্যাটফর্মে নামালেন কয়েক জন। তার পর শুরু হল গণপ্রহার। প্ল্যাটফর্মের দেওয়ালে ঠেসে ধরে শুরু হল বেদম মার। সঙ্গীকে বাঁচাতে তখন অসহায়, উদভ্রান্ত তরুণী। কিল-চড়-ঘুসি-লাথির মাঝে ঢুকে পড়ে সামনে থেকে জাপটে ধরলেন তরুণকে, আড়াল করার চেষ্টা করলেন। তাতেও থামল না অতি-উৎসাহী ভিড়। তরুণীর পিঠের উপরেই পড়তে থাকল কিল-চড়। ফাঁকফোকর দিয়ে মার চলল তরুণের উপরেও। আমি ঠেকানোর চেষ্টা করেছিলাম। পারিনি।

যাঁরা এই গণপ্রহারে অংশ নিয়েছিলেন, তাঁদের প্রায় প্রত্যেকেই কিন্তু মধ্যবয়সী বা প্রৌঢ় বা প্রবীণ। অনেক বেশি সংযত, পরিশীলিত আচরণ প্রত্যাশিত যাঁদের থেকে, তাঁদের আচরণই সবচেয়ে উশৃঙ্খল হয়ে উঠল।

ত্রাতা হিসেবে এগিয়ে এলেন কয়েক জন তরুণ এবং মহিলা। মেট্রোরই অন্য কামরায় ছিলেন ওঁরা। উত্তপ্ত ভিড়টার মাঝে ঢুকে পড়ে কোনও রকমে আটকে দিলেন মারধর। তার পর ভিড়ের মাঝখান থেকে উদ্ধার করে সিঁড়ির নীচের দিকে কিছুটা এগিয়ে দিলেন তরুণ-তরুণীকে।

অকারণে মারের মুখে পড়েছিলেন যুগল। তাঁদের রক্ষা করতে কয়েক জন এগিয়েও গেলেন। কিন্তু, গোটা ঘটনাটা আমার বহু দিনের পরিচিত শহরটাকে যেন কয়েক শতাব্দী পিছিয়ে দিল। ২০১৮-র কলকাতায় এই রকম একটা ঘটনার সম্মুখীন হব! ভাবতেই পারছি না। আমি আটকাতে পারিনি অঘটনটা। তাতেই সাংঘাতিক মানসিক কষ্ট বোধ করছি। আক্রান্ত যুগলের মানসিক অবস্থাটা তা হলে ঠিক কী রকম এখন? আমরা কি আদৌ ভাবতে পারছি?

সিনেমার পর্দায় আলিঙ্গন বা চুমু খাওয়ার দৃশ্য দেখে অভিভূত হয়ে পড়ি আমরা। ‘হাম দিল দে চুকে সনম’ নামের একটা হিন্দি ছবির কথা লহমায় মনে পড়ছে। বিদেশের ট্রেন। ভারতীয় যুগল। টিকিট নেই। টিকিট পরীক্ষককে এড়াতে হিরো-হিরোইন ট্রেনের কামরায় গভীর আলিঙ্গনে আবদ্ধ। বিরক্ত করলেন না পরীক্ষক। টিকিট না দেখেই চলে গেলেন। আর টিকিট পরীক্ষকের সেই প্রস্থান দেখে হাততালিতে ফেটে পড়ল সিনেমা হল।

বাস্তবে মেনে নিতে পারলাম না একই ধাঁচের একটা দৃশ্য। মেট্রোর কামরায় প্রাপ্তবয়স্ক তরুণ-তরুণী পরস্পরকে আলিঙ্গন করায় তাঁদের ট্রেন থেকে হিড়হিড় করে টেনে নামিয়ে উন্মত্তের মতো মারধর করলাম আমরা।

প্রায় দু’দশকের আলাপ কলকাতা শহরের সঙ্গে। ভেবেছিলাম শহরটার নাড়ির স্পন্দন আমি চিনে গিয়েছি। কিন্তু কলকাতা মেট্রোয় একটা ১৫ মিনিটের যাত্রা, সে ভুল ভেঙে দিল। এই শহরটা আমার কাছে একদমই অচেনা। হয় আমি কোনও দিন চিনতেই পারিনি এই শহরকে। নয়তো শহরটা আমাদের অনেকের অগোচরেই ভীষণ রকম বদলে ফেলেছে নিজেকে।
লেখা - বন্য ট্রল পেজ