ভালোবাসা কারে কয়


আমি সাহেব বিস্বাস এই প্রথম লিখছি এই ওয়েবসাইট-এ
কেমন আছেন অবশ্যই জানাবেন। আশা করি ভালই আছেন।
আজকে আমি আপনাদের যে গল্পটা শোনাব সেটার নাম দিলাম
ভালোবাসা কারে কয়

অমিত আর সীমা দুজন দুজনকে খুবই ভালোবাসে।
আমার মত সবারই তাই মনেহত। দুজনকে মানাতও সুন্দর।
চার বছর হয়ে গেল ওদের সম্পর্কের, এ বছরই সীমা উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষাই মোটামুটি নম্বর পেয়ে পাশ করেছে।
সব কিছুই ঠিক চলছিলো কিন্তু এবার সীমার বাড়ির থেকে বিয়ের প্রস্তুতি নেওয়া শুরু হল।
বাড়িতে জানালে হয়ত সবাই মেনেই নিত যদি অমিত কোনও চাকরি বা কোনও কাজ করত।
অমিত এখনও চাকরি পায়নি, ঠিক করে বলতে গেলে বলতে হয় এখনও শুরু করেনি।
সবাই বলে অমিত যখন ইচ্ছা তখনই একটা ছোটোখাটো চাকরি পেতে পারে কারন তার রেজাল্ট খুবই ভাল।
তবে ভাল চাকরি সে এক বছরের মধ্যেই পেয়ে যাবে, এটুকু আত্মবিশ্বাস তার আছে।
এদিকে সীমার জন্য তার বাড়ির লোকেরা ভাল পাত্রের সন্ধান পেয়ে গেছে। পাত্রের মাসিক ইনকামও বেশ ভাল।
এর মধ্যে সীমাও তার অপছন্দের কথা বাড়িতে জানায়নি, তাই সমস্ত কিছুই এখন ঠিকঠাক, এমনকি বিয়ের দিন পর্যন্তও ঠিক হয়ে গিয়েছে।
এ সমস্ত কিছু অমিত জানতে পেরে বেশ মুষড়ে পড়েছে। সীমাকে ডেকে এনে সে বলল "তুমি নাকি বিয়ে করে নিচ্ছ?"
সীমা বলল, হ্যা ঠিকই শুনেছ।
অমিত ত হতভম্ব হয়ে পড়ল, বলল কেন? আমি চাকরি করিনা তারজন্য?
সীমা বলল, হ্যা, তাছাড়া বাড়িতে সব ঠিকঠাক। আমি এখন না বলতে পারবনা।
অমিত ভাবল, সীমার কাছে আমার জন্য আলাদা কোনও টানই নেই, সে বাড়িতে একবার বলেও দ্যাখেনি তারা কি বলেন।
অমিতের মাথাই নানারকম কথা, সৃতি, ভাবনা ঘুরপাক খেতে লাগল। সে সীমাকে এত ভালোবাসে আর সীমার কাছে সে মূল্যহীন।
তারপর অমিত বলল, ঠিক আছে। ভাল থেকো।

পাঁচ বছর পর.........
সীমা ও তার স্বামী একটি শপিং মলে এসেছে দুর্গাপূজার বাজার করতে।
তাদের একটা ছেলে হয়েছে এরমধ্যে, তার জন্যও অনেক কিছু কিনতে এসেছে সীমা।
সে নানারকম জিনিস দেখছে, কিনছে আর তার স্বামী এখন একটু বাথরুম এ গেছে।
এমন সময় সীমা দেখতে পেল অমিত কে, সেও হয়ত কিছু জিনিস কিনতে এসেছে।
সীমা তার কাছে এগিয়ে গেল, বলল কেমন আছো? তোমার সাথে ত আমার আর দেখায় হয় না!
অমিত বলল, ভাল আর তুমি কেমন আছো?
সীমা বলল, আমিও ভাল আছি। মাঝে কিছুদিন খুব খারাপ গেছে, ওদের কম্পানিটা উঠে যাওয়ার পর।
তবে এখন খুব ভাল আছি, ও অন্য একটা কম্পানিতে উঁচু পোস্টে ভাল চাকরি পেয়েছে।  আর তুমি এখন কি করছ?
অমিত বলল, এই চলছে...।
এমন সময় সীমার স্বামী বাথরুম থেকে বেরিয়ে এল এবং অবাক হয়ে অমিত কে উদ্দেশ্য করে বলল...
একি! স্যার, আপনি এখানে, কেমন আছেন?
তারপর সীমার দিকে ঘুরে বলল, তুমি চেন নাকি ওনাকে? আমি যে কম্পানিতে চাকরি পেয়েছি, ওই কম্পানির ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও মালিক উনি।

কেমন লাগলো এই গল্পটা?
কমেন্টে অবশ্যই জানাবেন কিন্তু...

0 comments:

Post a Comment